echo ' জটিল হচ্ছে সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যু মামলা। - The Bengal Express - Bengali News Portal / Bangla khobor / Kolkata 24X7 / Bangla Live / Bengal 24

Header Ads

জটিল হচ্ছে সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যু মামলা।

বেঙ্গল ডেস্কঃ
যত সময় পেরচ্ছে ততই জটিল হচ্ছে সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যু মামলা। সিবিআইয়ের আধিকারিকরা এক এক করে অভিযুক্তদের জিজ্ঞেসাবাদ করছেন। সুশান্তের বন্ধু এবং ক্রিয়েটিভ ম্যানেজার সিদ্ধার্থ পিঠানি, পরিচারক নীরজ সিং এবং দীপেশ সবন্ত, এবং অ্যাকাউন্ট্যান্ট রজত মেবতীকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন তদন্তকারী অফিসাররা। সিবিআই সূত্রে খবর, এর পর রিয়াকে চক্রবর্তীকে তলব করা হবে। সুশান্তের বাবা কে কে সিং রিয়া ও তার পরিবারের বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ নিয়ে পটনায় এফআইআর দায়ের করেন। কে কে সিং অভিযোগ করেন, রিয়া এবং তাঁর পরিবার সুশান্তকে আত্মহত্যা করার জন্য বাধ্য করেছে। তাঁরা সুশান্তের টাকা নয়ছয় করেছে। মুম্বাই পুলিশের তরফে সেই অভিযোগে কোন তদন্ত আগে হয়নি। 
এবার সিবিআই সেই মামলার তদন্ত শুরু করেছে। সিবিআইয়ের হাতে তদন্ত ভার যাওয়ার পর থেকে সুশান্ত মৃত্যু রহস্য ঘনীভূত হয়েই চলেছে। সুশান্তের প্রাক্তন ম্যানেজার দিশা সালিয়ানের মৃত্যুর কারণও খতিয়ে দেখা হবে। অভিনেতার মৃত্যুর ঠিক ছদিন আগে (৮ই জুন) মৃত্যু হয় দিশার। জানা যায়, বহুতল ফ্ল্যাটের ব্যালকনি থেকে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন দিশা। সুশান্ত ও দিশার মৃত্যুর মধ্যে সংযোগ আছে বলে মনে করা হচ্ছে। এই দুই মৃত্যুর সংযোগ সূত্র খুঁজতে গিয়ে সামনে এসেছে এক নতুন তথ্য। জানা যাচ্ছে, দিশার মৃত্যুর পর ৯ থেকে ১৭ই জুন পর্যন্ত চালু ছিল তাঁর ফোন। শুধু তাই নয়, এই সময় তাঁর ফোন থেকে ইন্টারনেটের মাধ্যমে একাধিক কলও করা হয়েছে। এখন প্রশ্ন উঠছে, কে বা কারা এবং কি কারণে দিশার ফোন চালু রেখেছিল এবং সেখান থেকে কল করেছিল। ইতিমধ্যে সুশান্তের বান্দ্রার ফ্ল্যাটে ক্রাইম সিনের পুনঃনির্মাণ করা হয়েছে।
 তদন্ত করে দেখা হয়েছে সুশান্তের ঘরের খাট এবং ফ্যানের মধ্যেকার দূরত্ব কতটা। সুশান্তের উচ্চতা অনুযায়ী ওই দুরত্বে আত্মহত্যা করা সম্ভব কি না? নাকি তাঁকে হত্যা করা হয়েছে? ক্রাইম সিন পুনঃনির্মাণ করা পর জানা গেছে সুশান্তের উচ্চতা এবং খাট থেকে ফ্যানের উচ্চতার মধ্যে মাত্র এক ইঞ্চির ব্যবধান। এখন প্রশ্ন উঠছে মাত্র এক ইঞ্চির ব্যবধানে কি ভাবে ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করা সম্ভব? সিবিআই সূত্রে জানা যাচ্ছে, সুশান্ত নিজে আত্মঘাতী হয়েছিলেন না তাঁকে নেশার দ্রব্য দিয়ে অবচেতন করে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে সেই বিষয় খতিয়ে দেখছেন তারা। ফরেন্সিক বিশেষজ্ঞরা সুশান্তের ময়নাতদন্তের রিপোর্ এবং ভিসেরা খতিয়ে দেখছেন। তার পরই পরিস্কার ভাবে কিছু জানা সম্ভব হবে। সূত্রের খবর, ভিসেরা পরীক্ষার জন্য সুশান্তের দেহ থেকে যে নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছিল তার ৮০ শতাংশই মুম্বাই পুলিশ শেষ করে ফেলেছে তাদের তদন্তে। তাই বাকি ২০ শতাংশ নমুনায় এই মুহুর্তেই হাত দিতে চাইছেন না সিবিআই।
Loading...

No comments

Theme images by centauria. Powered by Blogger.